রাসেল তান্ডবে চট্টগ্রামকে হারিয়ে বিপিএলের ফাইনালে রাজশাহী

এস.এম শাহরিয়ার স্পোর্টস রিপোর্টার
বৃহস্পতিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২০, রাত ১:০৫

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ফাইনালে উঠেছে রাজশাহী রয়ালস। শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ১৫ জানুয়ারি (বুধবার) দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে আন্দ্রে রাসেলের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে ২ উইকেটে হারিয়েছে রাজশাহী।

মিরপুরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ক্রিস গেইলের হাফ-সেঞ্চুরিতে ভর করে ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৬৪ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে চট্টগ্রাম। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৯.২ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় রাজশাহী।

১৬৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেসে দলীয় ১৪ রানের মধ্যে দু্ই ওপেনার আফিফ হোসাইন (২) ও লিটন দাস (৬) প্যাভিলিয়নে ফেরত যান। অলোক কাপালি ৯ রান করে বিদায় নিলে বিপদ আরও বাড়ে।

চতুর্থ উইকেট জুটিতে চাপ সামাল দেয়ার চেষ্টা করেন ইরফান শুক্কুর ও শোয়েব মালিক। তবে ওভারপ্রতি রাননেট বাড়তে থাকে। ফলে চাপ আরও বাড়ে। সেই চাপেই দলীয় ৮০ রানের মাথায় ১৪ রান করে অাউট হন শোয়েব মালিক। এরপরই ইরফান ৪৫ রান করে আউট হন।

মোহাম্মদ নেওয়াজ ১৪, ফরহাদ রেজা ৬ ও কামরুল ইসলাম রাব্বি শূন্য রানে বিদায় নিলে ১২৮ রান তুলতেই ৮ উইকেট হারিয়ে বসে রাজশাহী। ক্রিজে তখনও টিকে ছিলেন আন্দ্রে রাসেল। দলকে একাই টেনে তোলার দায়িত্ব নেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান।

জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে প্রয়োজন ছিল ৩১ রান। ১৯তম ওভারে রানার কাছ থেকে ২৩ রান আদায় করে নেন রাসেল। অার এতেই ম্যাচ জয়ের নাগালে নিয়ে আসেন তিনি। শেষ ওভারে ছয় মেরে দলে জয় নিশ্চত করেন রাসেল। ২২ বলে অর্ধ-শতক তুলে ৫৪ রানে অপরাজিত থাকেন। রাসেলের ইনিংসে ২টি চার ও ৭টি বিশাল ছয়ের মার ছিল। চট্টগ্রামের এমরিট ও রুবেল ২টি এবং রানা, মাহমুদউল্লাহ ও জিয়া ১টি করে উইকেট নেন।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ২২ রানের মাথায় ওপেনার জিয়াউর রহমানের (৬) উইকেট হারায় চট্টগ্রাম। এরপর ইমরুল কায়েস ৫ রান করে বিদায় নেন দলের রান তখন ৪৫। কিন্তু অন্যপ্রান্তে ক্রিস গেইল ঠিকই ব্যাট চালিয়ে রান তুলতে থাকেন। তাই ওভারপ্রতি ঠিকই ১০ রান করে তুলতে থাকে চট্টগ্রাম।

তৃতীয় উইকেটে অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে সঙ্গে নিয়ে ৫২ রানের জুটি গড়েন গেইল। ২১ বলে হাফ-সেঞ্চুরির দেখা পান এই ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব। দলীয় ৯৭ রানের মাথায় গেইল ২৪ বলে ৬০ রান করে আফিফের বলে আউট হন। ৬টি চার ও পাঁটি ছয়ের মারে সাজানো্ ছিলো গেইলের ইনিংসটি।

এরপর মাহমুদউল্লাহ রানের চাকা সচল রাখার চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি ইনিংস বড় করতে পারেন নি। ১৮ বলে ৩৩ রান করে আউট হন তিনি। মাহমুদউল্লাহ আউট হওয়ার পর চট্টগ্রামের আর কোনো ব্যাটসম্যান ঝড়ো গতির ইনিংস খেলতে পারেন নি।

আসিলা গুনারত্নে ২৫ বলে ৩১ রানের ইনিংস খেলে আউট হলে ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেটে ১৬৪ রান তুলতে পারে চট্টগ্রাম। গেইল, মাহমুদউল্লাহ ও আসিলা গুনারত্নে ছাড়া চট্টগ্রামের আর কোনো ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের রানের দেখা পান নি।

রাজশাহীর মোহাম্মদ ইরফান ও মোহাম্মদ নেওয়াজ ২টি এবং কামরুল ইসলাম রাব্বি, আফিফ হোসাইন ও অলোক কাপালি ১টি করে উইকেট নেন। রাজশাহীর আন্দ্রে রাসেল ম্যাচ সেরা হন।

আগামী ১৭ জানুয়ারি (শুক্রবার) বিপিএলের ফাইনালে খুলনা টাইগার্সের মুখোমুখি হবে রাজশাহী রয়ালস।