এককভাবে আইসিসির ইভেন্ট আয়োজন করতে ইচ্ছুক বাংলাদেশ

নট আউট ডেস্ক ডেস্ক রিপোর্টার
মঙ্গলবার, ২১ জানুয়ারি ২০২০, বিকাল ৪:৫০

১১' এর ওয়ানডে বিশ্বকাপের যৌথ আয়োজক হিসেবে বেশ সফল হয়েছিলো বাংলাদেশ, এবারে সেই সফলতা থেকে উদ্ভুদ্ধ হয়েই একক ভাবে আইসিসির ইভেন্ট আয়োজনে প্রস্তাব রেখেছে বিসিবি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, আইসিসির নতুন চক্রে (২০২৪-৩১) যে সব বড় ইভেন্ট আয়োজন হবে সেগুলোর জন্য আবেদন করবে বাংলাদেশ।

সোমবার ঢাকায় এসেছেন আইসিসির নতুন প্রধান নির্বাহী মানু সোয়ানি ও কমার্শিয়াল জেনারেল ম্যানেজার ক্যাম্পবেল জেমিসন। তাদের সঙ্গে বৈঠকের পর নাজমুল হাসান এসব কথা বলেন। নতুন চক্রে আইসিসির ইভেন্টে আয়োজক হওয়ার প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন আসবে। অলিম্পিক এবং ফিফা বিশ্বকাপের মতো ক্রিকেটেও হবে বিডিং পদ্ধতি। মানে আয়োজক হতে আবেদন করতে হবে।

নাজমুল হাসান জানান, ‘আগে কখনো মহাদেশের ভিত্তিতে, কখনো সদস্যদেশগুলোর অগ্রাধিকার এসব ছিল। এবার হবে বিডিং প্রক্রিয়ায়। যেটা ফিফা এবং অলিম্পিকে হয়ে থাকে। ’ ক্রিকেট খেলুড়ে দেশের বাইরের দেশগুলোও আইসিসি ইভেন্টের আয়োজক হতে বিড করতে পারবে বলে জানান নাজমুল হাসান পাপন। ২০২৪-২০৩১ চক্রে আইসিসি মোট ২৪টি ইভেন্ট আয়োজন করবে। যার মধ্যে ছেলেদের বিশ্বকাপ ৮টি, মেয়েদের বিশ্বকাপ ৮টি ও অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ৮টি।

এর আগে ২০১৬-২০২৩ চক্রে সব বড় ইভেন্টই পেয়েছে ভারত, অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড এবং শ্রীলঙ্কা কোনো ইভেন্টেরই আয়োজক হতে পারেনি। নাজমুল হাসান পাপন জানালেন, ‘আইসিসির কর্মকর্তারা মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডেও ভ্রমণ করেছেন। এবং তারা যুক্তরাষ্ট্রেও যাবে।’

বিভিন্ন দেশে আইসিসি কর্তাদের ভ্রমণের উদ্দেশ্য একটিই, ইভেন্ট আয়োজন নিয়ে আলোচনা। বিসিবি প্রধান জানালেন বাংলাদেশ সবগুলো ইভেন্ট আয়োজনের জন্যই বিড করবে, ‘বাংলাদেশ অবশ্যই বিড করবে। আমাদের সুবিধা হচ্ছে, অন্য কোনো দেশ হুট করে করতে গেলে যে অবকাঠামো লাগে সেটা আমাদের আছে। নতুন করে অবকাঠামো নির্মাণে সরকারকে খুব বেশি বিনিয়োগ করতে হবে না।’