বিদেশেও মুমিনুলদের প্রতিপক্ষ দেশীয় দল!

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই ২০২০, সকাল ৮:৫৬

সিনিয়র করেসপন্ডেন্টঃ বিদেশ সফরে যাওয়ার আগে দেশের মাটিতে নিজেদের দলের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার নজির আছে বহু। নিজেদের প্রস্তুত করতে এমনটা সবসময়ই করে দলগুলো। এমনকি যে কোনো সফরে গেলে সংশ্লিষ্ট দেশেও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে সফরকারীরা। নতুন কন্ডিশনে মানিয়ে নিতেই এমনটা করা হয়।

তবে বিদেশে গিয়েও দেশীয় প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার ঘটনা বেশ বিরলই বলতে হবে। সবকিছু ঠিক থাকলে এমন ব্যতিক্রমী অভিজ্ঞতার মুখেই পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় দল। অক্টোবরে শ্রীলঙ্কা সফরে এই পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে যাচ্ছে মুমিনুল হকের দল।

করোনায় জুলাইয়ে স্থগিত হওয়া সিরিজটা অক্টোবরে খেলতে পারে বাংলাদেশ। যেখানে বিসিবি প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য চেষ্টা করেছিল। কিন্তু করোনার কারণে লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড বাংলাদেশ দলের সঙ্গে বাইরের কাউকে সম্পৃক্ত করতে চায় না। সম্পূর্ণ পৃথকভাবে রাখা হবে মুমিনুলদের। সেখানে লঙ্কান ক্রিকেটারদের নিয়ে গঠিত কোনো দলের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজন করতে রাজি নয় এসএলসি (এসএলসি)।

তবে বিকল্প ভেবে রেখেছে বিসিবি। শ্রীলঙ্কায় গিয়ে দেশীয় দলের বিরুদ্ধে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে পারে মুমিনুল বাহিনী। এই সুযোগটা তৈরি হয়েছে কারণ প্রায় একই সময়ে বিসিবির হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলটা শ্রীলঙ্কা সফরে থাকবে। মুমিনুলদের টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতি হতে পারে এই এইচপি দলের বিরুদ্ধে খেলেই।

বিসিবির এইচপি চেয়ারম্যান নাঈমুর রহমান দুর্জয় এমনটাই জানালেন দেশের এক জাতীয় দৈনিককে। তিনি বলেছেন, ‘এটি হলেই সম্ভাব্য সেরা ব্যবস্থা হবে। কারণ ওরা (এসএলসি) তো অনুশীলন ম্যাচ দেবে না। তা ছাড়া দেশেও আমাদের ম্যাচ খেলার মতো অবস্থা নেই। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ হলেও ভালো প্রস্তুতি হতে পারত।

সেটিও তো হচ্ছে না। এইচপি দলকেও পাঠানো অনেক বিকল্পের একটি। সব কিছুই এখনো আলাপ-আলোচনার পর্যায়ে। এসএলসির চিন্তাধারা হলো, তারা জাতীয় দলের বাইরে খুব বেশি খেলোয়াড়কে সম্পৃক্ত করতে চায় না। মানে (সম্পৃক্ত) করবেই না। কোয়ারেন্টিন থেকে শুরু করে আরো অনেক বিষয় এর সঙ্গে জড়িত, যেগুলো বেশ ঝামেলার। সে ক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কার কোনো দলের সঙ্গে অনুশীলন ম্যাচ খেলারও সুযোগ আমাদের নেই।’

দুর্জয় আরও বলেন, ‘এইচপির একটি সফর শ্রীলঙ্কায় ছিলই। কাজেই আমরা চিন্তা করেছি একই সময়ে এইচপির স্কোয়াড যদি ওখানে থাকে, তাহলে অনুশীলন শিবিরও চলল ওদের। পাশাপাশি অনুশীলন ম্যাচগুলোও আমরা নিজেদের মধ্যে সেরে ফেলতে পারব।’